ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত

ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত

  • কে

    বল দেখি এ জগতে ধার্মিক কে হয়,সর্ব জীবে দয়া যার, ধার্মিক সে হয়।বল দেখি এ জগতে সুখী বলি কারে,সতত আরোগী যেই, সুখী বলি তারে।বল দেখি এ জগতে বিজ্ঞ বলি কারে,হিতাহিত বোধ যার, বিজ্ঞ বলি তারে।বল দেখি এ জগতে ধীর বলি কারে,বিপদে যে স্থির থাকে, ধীর বলি তারে।বল দেখি এ জগতে মূর্খ বলি কারে,নিজ কার্য নষ্ট করে, মূর্খ বলি তারে।বল দেখি…

    Read More »
  • কৌলীন্য

    মিছা কেন কুল নিয়া কর আঁটাআঁটি।এ যে কুল কুল নয় সার মাত্র আঁটি।।কুলের গৌরব কর কোন্ অভিমানে।মূলের হইলে দোষ কেবা তারে মানে।।ঘটকের মুখে সুধু কুলীনের চোপা।রস নাই যশ কিসে কুল হল টোপা।।আদর হইত তবে ভাঙ্গিলে অরুচি।পোকাধরা সোঁকা ভার দেখে যায় রুচি।।অতএব বৃথা এই কুলের আচার।ইথে নাহি রক্ষা পায় কুলের আচার।।কুলের সম্ভ্রম বল করিব কেমনে।শতেক বিধবা হয় একেক মরণে।।বগলেতে বৃষকাষ্ঠ শক্তিহীন…

    Read More »
  • তপসে মাছ

    কষিত-কনককান্তি কমনীয় কায়।গালভরা গোঁফ-দাড়ি তপস্বীর প্রায়॥মানুষের দৃশ্য নও বাস কর নীরে।মোহন মণির প্রভা ননীর শরীরে॥পাখি নও কিন্তু ধর মনোহর পাখা।সমধুর মিষ্ট রস সব-অঙ্গে মাখা॥একবার রসনায় যে পেয়েছে তার।আর কিছু মুখে নাহি ভাল লাগে তার॥দৃশ্য মাত্র সর্বগাত্র প্রফুল্লিত হয়।সৌরভে আমোদ করে ত্রিভুবনময়॥প্রাণে নাহি দেরি সয় কাঁটা আঁশ বাছা।ইচ্ছা করে একেবারে গালে দিই কাঁচা॥অপরূপ হেরে রূপ পুত্রশোক হরে।মুখে দেওয়া দূরে থাক গন্ধে…

    Read More »
  • মাতৃভাষা

    মায়ের কোলেতে শুয়ে ঊরুতে মস্তক থুয়েখল খল সহাস্য বদন।অধরে অমৃত ক্ষরে আধ আধ মৃদু স্বরেআধ আধ বচনরচন।।কহিতে অন্তরে আশা মুখে নাহি কটু ভাষাব্যাকুল হয়েছে কত তায়।মা-ম্মা-মা-মা-বা-ব্বা-বা-বা আবো আবো আবা আবাসমুদয় দেববাণী প্রায়।।ক্রমেতে ফুটিল মুখ উঠিল মনের সুখএকে একে দেখিলে সকল।মেসো, পিসে, খুড়ো, বাপ জুজু, ভুত, ছুঁচো, সাপস্থল জল আকাশ অনল।।ভাল মন্দ জানিতে না, মল মুত্র মানিতে না,উপদেশ শিক্ষা হল যত।পঞ্চমেতে…

    Read More »
  • মানুষ কে?

    নিয়ত মানস ধামে একরূপ ভাব।জগতের সুখ-দুখে সুখ দুখ লাভ।।পরপীড়া পরিহার, পূর্ণ পরিতোষ।সদানন্দে পরিপূর্ণ স্বভাবের কোষ।।নাহি চায় আপনার পরিবার সুখ।রাজ্যের কুশলকার্যে সদা হাস্যমুখ।।কেবল পরের হিতে প্রেম লাভ যার।মানুষ তারেই বলি মানুষ কে আর? নাহি চায় রাজ্যপদ নাহি চায় ধন।স্বর্গের সমান দেখে বন উপবন।।পৃথিবীর সমুদয় নিজ পরিজন।সন্তোষের সিংহাসনে বাস করে মন।।আত্মার সহিত সব সমতুল্য গণে।মাতাপিতা জ্ঞাতি ভাই ভেদ নাহি মনে।।সকলে সমান মিত্র…

    Read More »
  • ভারতের ভাগ্য-বিপ্লব

    পূর্বকার দেশাচার          কিছুমাত্র নাহি আর            অনাচারে অবিরত রত।কোথা পূর্ব রীতি নীতি,       অধর্মের প্রতি প্রীতি,           শ্রুতি হয় শ্রুতিপথহত।।দেশের দারুণ দুখ          দেখিয়া বিদরে বুক,             চিন্তায় চঞ্চল হয় মন।লিখিতে লেখনী কাঁদে       ম্লানমুখ মসীছাঁদে          শোক-অশ্রু করে বরিষণ।।কি ছিল কি হ’ল, আহা,      আর কি হইবে তাহা,            ভারতের ভবভরা যশ।ঘুচিবে সকল রিষ্টি          হবে সদা সুখ-বৃষ্টি,          সর্বাধারে সঞ্চারিবে রস।।সুরব সৌরভ হয়ে          দশদিকে যশ লয়ে,           প্রকাশিবে শুভ সমাচার।স্বাধীনতা মাতৃস্নেহে        ভারতের জরা-দেহে          করিবেন শোভার সঞ্চার।।দুর হবে সব ক্লান্তি         পলাবে প্রবলা…

    Read More »
  • কে? – ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত

    বল দেখি এ জগতে ধার্মিক কে হয়, সর্ব জীবে দয়া যার, ধার্মিক সে হয়। বল দেখি এ জগতে সুখী বলি কারে, সতত আরোগী যেই, সুখী বলি তারে। বল দেখি এ জগতে বিজ্ঞ বলি কারে, হিতাহিত বোধ যার, বিজ্ঞ বলি তারে। বল দেখি এ জগতে ধীর বলি কারে, বিপদে যে স্থির থাকে, ধীর বলি তারে। বল দেখি এ জগতে মূর্খ বলি…

    Read More »
  • মানুষ কে? – ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত

    নিয়ত মানসধামে একরূপ ভাব।জগতের সুখ-দুখে সুখ দুখ লাভ।।পরপীড়া পরিহার, পূর্ণ পরিতোষ।সদানন্দে পরিপূর্ণ স্বভাবের কোষ।।নাহি চায় আপনার পরিবার সুখ।রাজ্যের কুশলকার্যে সদা হাস্যমুখ।।কেবল পরের হিতে প্রেম লাভ যার।মানুষ তারেই বলি মানুষ কে আর? নাহি চায় রাজ্যপদ নাহি চায় ধন।স্বর্গের সমান দেখে বন উপবন।।পৃথিবীর সমুদয় নিজ পরিজন।সন্তোষের সিংহাসনে বাস করে মন।।আত্মার সহিত সব সমতুল্য গণে।মাতাপিতা জ্ঞাতি ভাই ভেদ নাহি মনে।।সকলে সমান…

    Read More »
  • কৌলীন্য – ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত – বাংলা কবিতা

    বাংলা কবিতা December 15, 2018 ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত 146 Views মিছা কেন কুল নিয়া কর আঁটাআঁটি।এ যে কুল কুল নয় সার মাত্র আঁটি।।কুলের গৌরব কর কোন্ অভিমানে।মূলের হইলে দোষ কেবা তারে মানে।।ঘটকের মুখে সুধু কুলীনের চোপা।রস নাই যশ কিসে কুল হল টোপা।।আদর হইত তবে ভাঙ্গিলে অরুচি।পোকাধরা সোঁকা ভার দেখে যায় রুচি।।অতএব…

    Read More »
  • মাতৃভাষা – ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত

    মায়ের কোলেতে শুয়ে ঊরুতে মস্তক থুয়ে খল খল সহাস্য বদন। অধরে অমৃত ক্ষরে আধ আধ মৃদু স্বরে আধ আধ বচনরচন।। কহিতে অন্তরে আশা মুখে নাহি কটু ভাষা ব্যাকুল হয়েছে কত তায়। মা-ম্মা-মা-মা-বা-ব্বা-বা-বা আবো আবো আবা আবা সমুদয় দেববাণী প্রায়।। ক্রমেতে ফুটিল মুখ উঠিল মনের সুখ একে একে দেখিলে সকল। মেসো, পিসে, খুড়ো, বাপ জুজু, ভুত, ছুঁচো, সাপ স্থল জল আকাশ…

    Read More »
Back to top button
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker