নির্মলেন্দু গুণ

নির্মলেন্দু গুণ

  • হুলিয়া

    আমি যখন বাড়িতে পৌঁছলুম তখন দুপুর,আমার চতুর্দিকে চিকচিক করছে রোদ,শোঁ শোঁ করছে হাওয়া।আমার শরীরের ছায়া ঘুরতে ঘুরতে ছায়াহীনএকটি রেখায় এসে দাঁড়িয়েছে৷কেউ চিনতে পারেনি আমাকে,ট্রেনে সিগারেট জ্বালাতে গিয়ে একজনের কাছ থেকেআগুন চেয়ে নিয়েছিলুম, একজন মহকুমা স্টেশনে উঠেইআমাকে জাপটে ধরতে চেয়েছিল, একজন পেছন থেকেকাঁধে হাত রেখে চিত্কার করে উঠেছিল;- আমি সবাইকেমানুষের সমিল চেহারার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছি৷কেউ চিনতে পারেনি আমাকে, একজন রাজনৈতিক…

    Read More »
  • ‘মানুষ’

    আমি হয়তো মানুষ নই, মানুষগুলো অন্যরকম,হাঁটতে পারে, বসতে পারে, এ-ঘর থেকে ও-ঘরে যায়,মানুষগুলো অন্যরকম, সাপে কাটলে দৌড়ে পালায় । আমি হয়তো মানুষ নই, সারাটা দিন দাঁড়িয়ে থাকি,গাছের মতো দাঁড়িয়ে থাকি।সাপে কাটলে টের পাই না, সিনেমা দেখে গান গাই না,অনেকদিন বরফমাখা জল খাই না ।কী করে তাও বেঁচে থাকছি, ছবি আঁকছি,সকালবেলা, দুপুরবেলা অবাক করেসারাটা দিন বেঁচেই আছি আমার মতে । অবাক…

    Read More »
  • একটি খোলা কবিতা

    আসুন আমরা আগুন সম্পর্কে বৃথা বাক্যব্যয় না করে একটি দিয়াশলাইয়ের কাঠিজ্বালিয়ে দিয়ে বলিঃ ‘এই হচ্ছে প্রকৃত আগুন ।মীটসেফ খোলা রেখে, বিড়ালকে উপদেশ দিয়েঅযথা সময় নষ্ট ক’রে লাভ নেই, আসুনআমরা মীটসেফের দরোজাটা বন্ধ করে দেই ।’ পুঁজিবাদী শোষণের পথ খোলা রেখেসম্ভব নয় প্রকৃত মুক্তির স্বপ্ন দেখানো ।ফুঁটো চৌবাচ্চায় জল থাকবার কথা নয়,সে বেরিয়ে যাবেই; ওটাই জলের ধর্ম ।আমাদের ধর্ম ভিন্ন হলেও…

    Read More »
  • ওটা কিছু নয়

    এইবার হাত দাও, টের পাচ্ছো আমার অস্তিত্ব ? পাচ্ছো না ?একটু দাঁড়াও আমি তৈরী হয়ে নিই ।এইবার হাত দাও, টের পাচ্ছো আমার অস্তিত্ব ? পাচ্ছো না ?তেমার জন্মান্ধ চোখে শুধু ভুল অন্ধকার । ওটা নয়, ওটা চুল ।এই হলো আমার আঙ্গুল, এইবার স্পর্শ করো,–না, না, না,-ওটা নয়, ওটা কন্ঠনালী, গরলবিশ্বাসী এক শিল্পীরমাটির ভাস্কর্য, ওটা অগ্নি নয়, অই আমি–আমার যৌবন ।…

    Read More »
  • আক্রোশ

    আকাশের তারা ছিঁড়ে ফেলি আক্রোশে,বিরহের মুখে স্বপ্নকে করি জয়ী;পরশমথিত ফেলে আসা দিনগুলিভুলে গেলে এতো দ্রুতো,হে ছলনাময়ী? পোড়াতে পোড়াতে চৌচির চিতা নদীচন্দনবনে আগ্নির মতো জ্বলে,ভূকম্পনের শিখরে তোমার মুখহঠাৎ স্মৃতির পরশনে গেছে গলে । ফিরে গেলে তবু প্রেমাহত পাখি একা,ঝড় কি ছিলো না সেই বিদায়ের রাতে >ভুলে গেলে এতো দ্রুত, হে ছলনাময়ী,পেয়েছিলে তাকে অনেক রাত্রিপাতে । শব্দের চোখে করাঘাত করি ক্রোধে,জাগাই দিনের…

    Read More »
  • অগ্নিতে যার আপত্তি নেই

    থামাও কেন? গড়াতে দাও,গড়াক;জড়াতে চায়? জড়াতে দাও,জড়াক । যদি পাকিয়ে ওঠে জট,তৈরি হবে নতুন সংকটসুখ না হলে দুঃখ দিয়েপূর্ণ হবে ঘট । ডরাও কেন? এগোতে দাওজাগুক;সরাও কেন? আগুনে হাতলাগুক । জীবন শেষে মরণ হয়,মরণ শেষে হয় কী?অগ্নিতে যার আপত্তি নেইমাটিতে তার ভয় কী?

    Read More »
  • তোমার চোখ এতো লাল কেন

    আমি বলছি না ভালোবাসতেই হবে, আমি চাই কেউ একজন আমার জন্য অপেক্ষা করুক, শুধু ঘরের ভেতর থেকে দরজা খুলে দেবার জন্য। বাইরে থেকে দরজা খুলতে খুলতে আমি এখন ক্লান্ত। আমি বলছি না ভালোবাসতেই হবে, আমি চাই কেউ আমাকে খেতে দিক। আমি হাত পাখা নিয়ে কাউকে আমার পাশে বসে থাকতে বলছি না। আমি জানি এই ইলেকট্রিকের যুগ নারীকে মুক্তি দিয়েছে স্বামী-সেবার…

    Read More »
  • তুলনামূলক হাত

    তুমি যেখানেই স্পর্শ রাখো সেখানেই আমার শরীর৷ তোমার চুলের ধোয়া জল তুমি যেখানেই খোঁপা ভেঙ্গে বিলাও মাটিকে; আমি এসে পাতি হাত, জলভারে নতদেহ আর চোখের সামগ্রী নিয়ে ফিরি ঘরে, অথবা ফিরি না ঘরে, তোমার চতুর্দিকে শূন্যতাকে ভরে থেকে যাই৷ তুমি যেখানেই হাত রাখো, যেখানেই কান থেকে খুলে রাখো দুল, কন্ঠ থেকে খুলে রাখো হার, সেখানেই শরীর আমার হয়ে ওঠে রক্তজবা…

    Read More »
  • যাত্রাভঙ্গ

    হাত বাড়িয়ে ছুঁই না তোকে মন বাড়িয়ে ছুঁই, দুইকে আমি এক করি না এক কে করি দুই। হেমের মাঝে শুই না যবে, প্রেমের মাঝে শুই তুই কেমন করে যাবি? পা বাড়ালেই পায়ের ছায়া আমাকেই তুই পাবি। তবুও তুই বলিস যদি যাই, দেখবি তোর সমুখে পথ নাই। তখন আমি একটু ছোঁব হাত বাড়িয়ে জড়াব তোর বিদায় দুটি পায়ে, তুই উঠবি আমার…

    Read More »
  • পূর্ণিমার মধ্যে মৃত্যু

    একদিন চাঁদ উঠবে না, সকাল দুপুরগুলো মৃতচিহ্নে স্থির হয়ে রবে; একদিন অন্ধকার সারা বেলা প্রিয় বন্ধু হবে, একদিন সারাদিন সূর্য উঠবে না। একদি চুল কাটতে যাব না সেলুনে একদিন নিদ্রাহীন চোখে পড়বে ধুলো। একদিন কালো চুলগুলো খ’সে যাবে, কিছুতেই গন্ধরাজ ফুল ফুটবে না। একদিন জনসংখ্যা কম হবে এ শহরে, ট্রেনের টিকিট কেটে একটি মানুষ কাশবনে গ্রামে ফিরবে না। একদিন পরাজিত…

    Read More »
Back to top button
Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker